Â

মাধ্যমিক, উচ্চ-মাধ্যমিকের পরে কোন স্কলারশিপে কত টাকা পাবেন? বিস্তারিত জেনে নিন।

সদ্য পশ্চিমবঙ্গের মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এবার কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির তোরজোড় শুরু হয়ে গেছে। তবে অসহায় ছাত্র-ছাত্রীর উচ্চ শিক্ষার পথে প্রধান অন্তরায় অর্থাভাব। এমতবস্থায় পড়ুয়াদের পড়াশোনা চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য বেশিরভাগ সময় সরকারি স্কলারশিপ ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলি কর্তৃক ছাত্র-ছাত্রীদের প্রদত্ত বৃত্তি এক ভরসা হয়ে ওঠে। আমরা চেষ্টা করি সেসকল বিদ্যার্থীদের পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নয়, তারা যাতে উচ্চশিক্ষা লাভ করে তাদের ভবিষ্যতকে সুন্দরভাবে গড়তে পারে, তার জন্য বিভিন্ন স্কলারশিপের খোঁজ দিয়ে তাদের সহায়তা করা।

মাধ্যমিক পড়ুয়ারা ইতিমধ্যেই একাদশ শ্রেণিতে বিভিন্ন শাখায় ভর্তি হয়ে পড়াশোনার পথে এক নতুন অধ্যায়ে প্রবেশ করেছে। এবার উচ্চ মাধ্যমিক পড়ুয়ারা কলেজে স্নাতক কোর্সে ভর্তির মাধ্যমে তাদের পড়াশোনা জীবনের গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চলেছে। উচ্চ শিক্ষায় পড়াশোনার পাশাপাশি বিভিন্ন আনুষঙ্গিক খরচের জন্য (বই কেনা, টিউশন খরচ ইত্যাদি) ভালো পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন। তাই শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষা লাভে আর্থিক সহায়তা করার জন্য সরকার ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলি দু:স্থ, মেধাবী, মধ্যমান ও পূর্ববর্তী শ্রেণীতে পাস নম্বর পেয়েছেন এমন পড়ুয়াদের কোর্স অনুযায়ী বিভিন্ন পরিমাণ বৃত্তি প্রদান করে থাকে।

আজ এমনই ১৪টি স্কলারশিপ সম্বন্ধে খোঁজ দেবো যেগুলিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাসের পরে আবেদন করতে পারবেন এবং যেগুলিতে সবচেয়ে বেশি টাকা পাওয়া যায়। পাশাপাশি কোন স্কলারশিপে কত টাকা পাওয়া যায় তাও আলোচনা করবো। উক্ত ১৪ গুরুত্বপূর্ণ স্কলারশিপের মধ্যে ৮টি সরকারি স্কলারশিপ ও ছয়টি বেসরকারি স্কলারশিপ নিয়ে কথা বলবো। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

সরকারি স্কলারশিপ:-

১) স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ (SVMCM Scholarship):- এই স্কলারশিপে ছাত্র-ছাত্রীরা মাসিক সর্বনিম্ন ১,০০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৮,০০০ টাকা পেয়ে যাবেন। অর্থাৎ কোর্স অনুযায়ী বছরে সর্বনিম্ন ১২,০০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৯৬,০০০ টাকা পর্যন্ত পেয়ে থাকেন ছাত্র ছাত্রীরা। বিস্তারিত জানতে নিচের লিঙ্কে যান।

আরও পড়ুনঃ- SVMCM Scholarship এ আবেদন করুন।

২) নবান্ন স্কলারশিপ (Nabanna বা WBCMRF Scholarship):- এই স্কলারশিপের আওতায় মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিল থেকে শিক্ষার্থীরা এককালীন ১০,০০০ টাকা পাবেন। নবান্ন স্কলারশিপের আরেক নাম উত্তরকন্যা স্কলারশিপ। এই স্কলারশিপ সম্বন্ধে খুটিনাটি তথ্য জানতে নিচের প্রতিবেদনটি পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- নবান্ন বা উত্তরকন্যা স্কলারশিপে আবেদন প্রক্রিয়া।

৩) ঐক্যশ্রী স্কলারশিপ (Aikyashree or Minority Scholarship):- পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যালঘু শ্রেণির ছাত্র ছাত্রীদের জন্য মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে ছাত্র ছাত্রীদের প্রত্যেক বছর ক্লাস অনুযায়ী বার্ষিক ন্যূনতম ১,১০০ টাকা থেকে আরম্ভ করে সর্বোচ্চ ৩৩,০০০ টাকা পর্যন্ত আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। বিস্তারিত জানুন নিচের প্রতিবেদনে।

আরও পড়ুনঃ- ঐক্যশ্রী স্কলারশিপে আবেদন করুন।

৪) ওয়েসিস স্কলারশিপ (BCWD Or, Oasis Scholarship) :-

Backwards Classes Welfare Department এর তরফে রাজ্যের তফশিলি জাতি, তফশিলি উপজাতি ও অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণীর (ওবিসি) অন্তর্ভুক্ত বিদ্যার্থীদের উচ্চশিক্ষায় এগিয়ে যাওয়ার বিভিন্ন শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের কোর্স অনুযায়ী ১০,০০০ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে সরকারের তরফে। Oasis Scholarship সম্পর্কে পুঙ্খানুপুঙ্খ ইনফরমেশন জানতে নিচের নিবন্ধটি অবশ্যই পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- অনগ্রসর শ্রেণী কল্যাণ স্কলারশিপে আবেদন করুন।

৫) বিজ্ঞানী কন্যা মেধা বৃত্তি স্কলারশিপ:- এই স্কলারশিপে আবেদন করলে ছাত্রীরা বছরে ২৪,০০০ টাকা বৃত্তি পাবেন। বিস্তারিত জানতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করতে ভুলবেন না।

আরও পড়ুনঃ- BKMB স্কলারশিপে আবেদনের যোগ্যতা।

৬) প্রগতি স্কলারশিপ:- প্রগতি স্কলারশিপে আবেদন করলে কোর্স অনুযায়ী বছরে সর্বোচ্চ ৩০,০০০ টাকা পাবেন শিক্ষার্থীরা। আবেদন প্রক্রিয়া বিষয়ে বিশদে জানতে নিচের প্রতিবেদনে যান।

আরও পড়ুনঃ- প্রগতি স্কলারশিপে আবেদন পদ্ধতি।

৭) সক্ষম স্কলারশিপ:- সক্ষম স্কলারশিপের আওতায় প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনা ও হুইলচেয়ার কেনার জন্য ৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত আর্থিক সাহায্য করে থাকে ভারত সরকার।

আরও পড়ুনঃ- সক্ষম স্কলারশিপে আবেদন প্রক্রিয়া।

৮) MHRD স্কলারশিপ:- এই বৃত্তিটি সরাসরি মেধাবী পড়ুয়াদের মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের ফান্ড থেকে দেয়া হয়ে থাকে উপযুক্ত পড়ুয়াদের। স্কলারশিপ মূল্যস্বরূপ বার্ষিক পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।

আরও পড়ুনঃ- মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক স্কলারশিপ সম্বন্ধে বিস্তারিত জানুন।

বেসরকারি স্কলারশিপ:-

১) TATA ট্রাস্ট গ্রুপ স্কলারশিপ:- টাটা ক্যাপিটাল পঙ্খ স্কলারশিপে আবেদন করলে মিলবে পঞ্চাশ হাজার টাকার অনুদান। কিভাবে আবেদন করবেন বিস্তারিত জানুন নিচের প্রতিবেদনে।

আরও পড়ুনঃ- টাটা স্কলারশিপে আবেদন প্রক্রিয়া।

২) প্রিয়ম্বদা বিড়লা স্কলারশিপ:- প্রিয়ম্বদা বিড়লা স্কলারশিপ:- Priyamvada Birla Scholarship এ আবেদন করুন এবং পেয়ে যান বার্ষিক ২৪,০০০ টাকা বৃত্তি পাওয়ার সুযোগ। এই স্কলারশিপের জন্য কারা যোগ্য ও এর আবেদন প্রক্রিয়া সম্বন্ধে বিস্তারিত পড়ুন নিচের প্রবন্ধে।

আরও পড়ুনঃ- প্রিয়ম্বদা বিড়লা স্কলারশিপে আবেদন করুন।

৩) সীতারাম জিন্দাল স্কলারশিপ:- Sitaram Jindal Foundation Scholarship আবেদন করলে ৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত স্কলারশিপের সুযোগ পেয়ে যাবেন স্টুডেন্টরা? কিভাবে আবেদন করবেন বিস্তারিত জানতে প্রতিবেদন পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- সীতারাম জিন্দাল স্কলারশিপে আবেদন পদ্ধতি।

৪) ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর স্কলারশিপ:- ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর স্কলারশিপে আবেদন করুন আর পেয়ে যান বার্ষিক ৬,০০০ টাকা পর্যন্ত স্কলারশিপ। বিস্তারিত পড়তে নিচের খবরটিতে যান।

আরও পড়ুনঃ- ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর স্কলারশিপে আবেদন পদ্ধতি।

৫) আলো স্কলারশিপ:- আলো স্কলারশিপে আবেদন করে বার্ষিক ৭,২০০ টাকা পেয়ে যান। কিভাবে আবেদন করবেন? কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন, বিস্তারিত পড়ুন নিচের লিঙ্কে।

আরও পড়ুনঃ-আলো স্কলারশিপে আবেদন পদ্ধতি।

৬) ধীরুভাই আম্বানি স্কলারশিপ:- ধীরুভাই আম্বানি জিও ফাউন্ডেশন স্কলারশিপ এ আবেদন করুন এবং পেয়ে যান বার্ষিক ৪১,০০০ টাকা পর্যন্ত অনুদান। কারা আবেদন করতে পারবেন আবেদন পদ্ধতি সম্পর্কে নিচের কমেন্টে বিস্তারিত তথ্য পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- ধীরুভাই আম্বানি স্কলারশিপে আবেদন করুন।

এমন স্কলারশিপ সম্বন্ধে গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকগুগল নিউজ এ ফলো করুন।

Like Facebook Page