Â

ভারতরত্ন পুরস্কার প্রাপকেরা কি কি সুবিধা পেয়ে থাকেন? কিভাবে মনোনীত করা হয়? বিস্তারিত জানুন।

ভারতরত্ন পুরস্কার বিজয়ীরা কত টাকা অর্থমূল্য পান? পুরস্কার পাওয়ার জন্য কি যোগ্যতা থাকতে হয়? কিভাবে প্রার্থী মনোনীত করা হয়? সর্বোপরি ভারতরত্ন প্রাপকেরা কি কি সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকেন বিস্তারিত আলোচনা করবো আজকের প্রতিবেদনে। তথ্য সমৃদ্ধ হতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

নিঃসন্দেহে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার হল ভারতরত্ন। স্বাভাবিকভাবেই সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে দেশের সর্বোচ্চ সন্মান পেলে কি কি সুবিধা মিলতে পারে? জানিয়ে রাখি ভারতের দ্বিতীয়, তৃতীয়ও চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সন্মাননা পুরস্কার হলো যথাক্রমে পদ্মবিভূষণ, পদ্মভূষণ ও পদ্মশ্রী। শুরুতে কেবল জীবিত ব্যক্তিদেরই ভারতরত্ন দেওয়ার প্রথা থাকলেও ১৯৬৬ তে মরণোত্তরভাবে ভারতরত্ন প্রদান শুরু হয়।

২০১৯ সাল পর্যন্ত ৪৮ জন ভারত রত্ন পেয়েছেন তার মধ্যে ৫ জন মহিলা, ১৪ জন মরণোত্তরভাবে এই পুরস্কার পেয়েছেন এবং ২ জন বহির্ভারতীয়কে এই অনন্য সন্মানে ভূষিত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: পেশায় সঙ্গীতশিল্পী হতে চাইছেন? ভারত সরকার দিচ্ছে এই বিশেষ স্কলারশিপ।

ভারতরত্ন পাওয়ার জন্য কি যোগ্যতা থাকতে হয়?

১৯৫৪ সালের ২রা জানুয়ারী প্রথম এই পুরস্কার প্রদানের শুভসূচনা করে ভারত সরকার। সর্বপ্রথম সি ভি রমন, ডঃ সর্বেপল্লী রাধাকৃষ্ণণ ও সি রাজা গোপালাচারীকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। প্রথমে জাতি-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে কেবল বিজ্ঞান, সাহিত্য, শিল্পকলা এবং মানবসেবায় বিশেষ অবদানের জন্যই এই পুরস্কার প্রদান করা হতো। পরবর্তীতে ২০১১ সালে ‘যেকোনো ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী মানবিক অবদানের জন্য’ শর্তটিকে পুরস্কার পাওয়ার যোগ্যতার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করে ভারত সরকার।

কেবল ভারতীয় নয়, অ-ভারতীয়রাও এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত হতে পারেন। ১৯৮৭ তে পাকিস্তানি নাগরিক খান আব্দুল গফফর খান ও ১৯৯০ তে দক্ষিণ আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ রাষ্ট্রপতি নেলসন ম্যান্ডেলা কে এই পুরস্কারে সম্মানিত করে ভারত সরকার।

ভারতরত্নের জন্য কিভাবে মনোনয়ন পাওয়া যায়?

সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক যেকোনো মানবিক ক্ষেত্রেই (বিজ্ঞান, কলা, বাণিজ্য, শিক্ষা, সাহিত্য, ক্রীড়া, জনসেবা, শান্তি প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি) গুরুত্বপূর্ণ অবদান এবং বিশেষ কৃতিত্বের জন্য এই পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পাওয়া যায়। প্রতিবছর সর্বোচ্চ ৩ জনকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়ে থাকে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী পুরস্কারের জন্য যোগ্যদের নাম ভারতের রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করে থাকে।

bharat-ratna-lata

সেই মতো সুপ্রিম কোর্টের অনুত্যানুসারে (আইনমোতাবেক) নির্দিষ্ট বছরে সংশ্লিষ্ট ভারতরত্ন প্রাপকদের নাম প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ঘোষণা করে ভারত সরকার। শেষবার ২০১৯ সালে এই পুরস্কার পেয়েছেন সমাজ সংস্কারক নানাজি দেশমুখ (মরণোত্তর), প্রখ্যাত সঙ্গীত বিশারদ ভূপেন হাজারিকা (মরণোত্তর) এবং প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি মহাশয়।

ভারতরত্ন রা কি কি সুবিধা পেয়ে থাকেন?

ভারতরত্ন প্রাপকেরা ব্রোঞ্জের তৈরি একটি অশ্বত্থ পাতা স্মারক হিসেবে পেয়ে থাকেন যার সামনের দিকে প্লাটিনামের সূর্যের প্রতীক এবং দেবনাগরী হরফে ভারতরত্ন কথাটি লেখা থাকে। অপর পার্শ্বে ভারতের জাতীয় প্রতীক প্ল্যাটিনামের তৈরি অশোক স্তম্ভ খোদাই করা থাকে এবং লেখা থাকে সত্যমেব জয়তে। পাশাপাশি পুরস্কার প্রাপকে ভারতের রাষ্ট্রপতির সই করা এই সনদও (শংসাপত্র) প্রদান করা হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য ভারতরত্ন পুরস্কার প্রাপকদের কোনোরূপ অর্থমূল্য প্রদান করা হয় না। পরিবর্তে বিভিন্ন ধরনের সুবিধা ভোগ করে থাকেন সর্বোচ্চ অসামরিক পুরস্কার প্রাপকরা। যেমন- ভারতীয় পার্লামেন্টে বক্তৃতা দেওয়ার অধিকার পেয়ে থাকেন। কূটনীতিক পাসপোর্ট লাভের পাশাপাশি আজীবন ভারতীয় রেল ও এয়ার ইন্ডিয়া বিমানে বিনামূল্যে ভ্রমণের সংরক্ষিত টিকিট। এছাড়াও সরকারি নিরাপত্তাজনিত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকেন ভারত রত্নেরা। বলা বাহুল্য, যেমন রাষ্ট্রপতিকে দেশের প্রথম নাগরিক হিসেবে গণ্য করা হয় তেমনি পদমর্যাদার দিক থেকে ভারতরত্ন হলেন দেশের সপ্তম পদমর্যাদার অধিকারী।

মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের আদেশমতো ভারতরত্ন কোনো ব্যক্তি উপাধি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন না। বরং এটি হলো ভারত সরকার কর্তৃক ব্যক্তিবিশেষে প্রদান করা একটি বেসামরিক সন্মান বিশেষ।

একনজরে উল্লেখযোগ্য ভারতরত্ন প্রাপকেরা:-

আরও পড়ুন: বাড়িতে নার্সারির মতো গোলাপচারা কিকরে তৈরি করবেন? বিস্তারিত জানুন প্রতিবেদনে।

  • ১৯৬৬ সালে লাল বাহাদুর শাস্ত্রী কে প্রথম মরণোত্তরভাবে ভারতরত্ন প্রদান করা হয়।
  • ২০১৪ তে জীবিত অবস্থায় সবচেয়ে কম বয়সে (৪০ বছর বয়সে) ভারতরত্ন পান শচীন তেন্ডুলকর।
  • ড: কেশব কার্ভে ১৯৫৮ তে জীবিত অবস্থায় এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি বয়সে এই পুরস্কার পেয়েছেন।
  • রাজীব গান্ধী কে ১৯৯১ সালে মরণোত্তরভাবে সবচেয়ে কম বয়সে (৪৭ বছর) ভারতরত্ন দেওয়া হয়।
  • ২০১৫ সালে মদন মোহন মালব্যকে সবচেয়ে বেশি বয়সে মরণোত্তরভাবে (১৫৩ বছর) এই পুরস্কার প্রদান করা হয়।
  • প্রথম বিদেশি হিসেবে খান আব্দুল গফফার খানকে ১৯৮৭ তে এই পুরস্কারে সন্মানিত করা হয়।
  • দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম অ-শ্বেতাঙ্গ রাষ্ট্রপতি নেলসন ম্যান্ডেলাকে ১৯৯০ তে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।
bharat-ratna-sachin
Bharat-Ratna Sachin Tendulkar

নোবেলজয়ী ভারতীয়দের মধ্যে সি ভি রমন (বিজ্ঞানী, ১৯৫৪), অমর্ত্য সেন (অর্থনীতিবিদ, ১৯৯৯) এবং মাদার টেরেসা কে (ভারতীয় নাগরিকত্ব গ্রহণ করায় মাদার কে ভারতীয় হিসেবেই গণ্য করা হয়) ১৯৮০ সালে এই দুর্লভ সন্মানে সন্মানিত করা হয়।

Frequently Asked Question

প্র:- প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে ভারতরত্ন কে পেয়েছেন?

উ:- ১৯৭১ সালে প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে ইন্দিরা গান্ধী এই পুরস্কার পান।

প্র:- প্রথম মহিলা সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে ভারতরত্ন কে পান?

উ:- প্রথম মহিলা সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে রাজস্থানের এম এস শুভলক্ষ্মী এই পুরস্কার পান।

প্র:- পশ্চিমবঙ্গ থেকে প্রথমবার ভারতরত্ন কে হন?

উ:- ড: বিধান চন্দ্র রায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে প্রথমবারের মতো এই পুরস্কার পান ১৯৭১ সালে।

প্র:- মহাত্মা গান্ধী কি ভারতরত্ন ছিলেন?

উ:- না।

প্র:- লতা মঙ্গেশকর কবে ভারতরত্ন পেয়েছিলেন?

উ:- ২০০১ সালে।

Like Facebook Page