Â

এই প্রকল্প গুলিতে রাজ্যবাসী কে ২৫,০০০ টাকা করে দিচ্ছে সরকার। আবেদন করলেই টাকা পাবেন। শীঘ্রই আবেদন করুন।

এই প্রকল্প গুলিতে আবেদন করলেই পঁচিশ হাজার টাকা পর্যন্ত আর্থিক সাহায্য দিচ্ছে সরকার। নিম্ন আয়সম্পন্ন পরিবারগুলির সদস্যদের এককালীন এই অর্থ সহায়তা প্রদান করছে রাজ্য সরকার। আবেদন করলেই যোগ্যতা অনুযায়ী টাকা পাবেন। শীঘ্রই আবেদন করুন। নিচের প্রতিবেদনে বিস্তারিত জানুন কোন কোন প্রকল্পের আওতায় ২৫,০০০ টাকার সুবিধা পাবেন রাজ্যবাসী?

বাংলার মসনদে ও ক্ষমতায় আসার পর থেকেই জনদরদি ও জনকল্যাণমুখী একাধিক প্রকল্পের সূচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কন্যাশ্রী, রূপশ্রী থেকে শুরু করে জয় জোহর, তপশিলি বন্ধু; মানবিক প্রকল্প, বিধবা ভাতা থেকে শুরু করে বৃদ্ধ ভাতা, লক্ষ্মীর ভান্ডার থেকে শুরু করে যুবশ্রী, শিক্ষাশ্রী। কৃষক বন্ধু, প্রতিবন্ধী ভাতা থেকে শুরু করে পুরোহিত ও ইমাম ভাতা। এছাড়াও সবুজশ্রী, পথসাথী, শিল্পী ভাতা সহ একাধিক জনহিতকর প্রকল্প চালু করেছে মা মাটি মানুষের সরকার।

আজ আলোচনা করবো রাজ্য সরকারের এমন দুটি প্রকল্প নিয়ে যেগুলির অধীনে বাংলার মেয়েরা এককালীন পঁচিশ হাজার টাকা পর্যন্ত আর্থিক সুবিধা সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পেয়ে যাবেন রাজ্য সরকারের তরফে। কীভাবে আবেদন করবেন, কারা আবেদন করতে পারবেন, কি সুবিধা পাবেন সমস্ত জানুন আজকের এই প্রতিবেদনে। তাহলে কথা না বাড়িয়ে চলুন জেনে নিন কোন প্রকল্প সেগুলি।

রাজ্য সরকারের একটি অন্যতম জনপ্রিয় বৃত্তি স্বরূপ প্রকল্প হলো কন্যাশ্রী প্রকল্প। এই প্রকল্পের আওতায় রাজ্য সরকার রাজ্যের যোগ্য কন্যাদের পড়াশোনার জন্য প্রত্যেক বছর ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য দিয়ে থাকে। এই প্রকল্প মহিমা এখন দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। কন্যাশ্রী প্রকল্প কে মোট তিনটি বিভাগে ভাগ করা হয়। K1, K2 ও K3। এই প্রকল্পে কোন ক্লাসে কত টাকা পাওয়া যায় আবেদন প্রক্রিয়া সমস্তটা জানতে নিচের খবরটি পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- কন্যাশ্রী প্রকল্পে কোন ক্লাসে কত টাকা পাবেন?

you will get rs 25k under these government scheme

রাজ্য সরকার বাংলার নিম্ন আয়সম্পন্ন পরিবারের বিবাহযোগ্যা মেয়েদের বিয়েতে পঁচিশ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য করার জন্য ২০১৮ তে রূপশ্রী প্রকল্পের সূচনা করে। কমপক্ষে ১৮ বছরের উর্ধ্বে বয়স এমন কন্যার ২১ বছরের উর্ধ্বে বয়সের পাত্রের সাথে বিবাহ হলে এই টাকা সহায়তা পাওয়া যায়। এছাড়াও কন্যার পরিবারের বার্ষিক আয় ১.৫ লাখ টাকার মধ্যে হতে হবে এবং এই প্রকল্পে আবেদনের জন্য বিবাহের রেজিস্ট্রি সার্টিফিকেট ও বিয়ের কার্ডের প্রয়োজন হয়।

বিয়ের মোটামুটি ৩-১ মাস আগে আবেদন করলে আবেদনপত্র সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ খতিয়ে দেখে কন্যার বিবাহের জন্য পঁচিশ হাজার টাকা মঞ্জুর করবে। এবং বিয়ের এক সপ্তাহ আগে সেই টাকা মেয়ের সিঙ্গেল ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে তা ক্রেডিট হয়ে যাবে। রূপশ্রী প্রকল্পের আবেদন সংক্রান্ত বিস্তারিত নথি ও আবেদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে খুটিনাটি জানতে নিচের প্রতিবেদনটি পড়ুন।

আরও পড়ুনঃ- নতুন নিয়মে রূপশ্রী প্রকল্পে কিভাবে আবেদন করবেন। জানুন বিস্তারিতI

এই রকমের আরও গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন খবরের ডিটেইলস আপডেট পেতে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ ও টেলিগ্রাম গ্রুপ যুক্ত হতে ভুলবেন না।

টেলিগ্রাম:- Link

হোয়াটসঅ্যাপ:- Link

Like Facebook Page