Â

কন্যাশ্রী, লক্ষ্মীর ভান্ডার অতীত। এই নতুন প্রকল্পে মহিলাদের ভালো পরিমাণ টাকা দিচ্ছে নরেন্দ্র মোদি সরকার।

ভোটের আগে বাজিমাৎ! কন্যাশ্রী, লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প অতীত। এবার বাংলার মহিলাদের জন্য নতুন প্রকল্প নিয়ে এলো কেন্দ্র সরকার। এই প্রকল্পের আওতায় রাজ্যের মহিলাদের দারুণ সুবিধা দিতে চলেছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। চলুন আজকের প্রতিবেদনে এই প্রকল্প সম্বন্ধে বিস্তারিত জেনে নিই।

অনগ্রসর শ্রেণীর মহিলাদের স্বনির্ভর করে গড়ে তুলতে এবং তারা যাতে নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে, তার জন্য স্বর্ণিমা প্রকল্প (Swarnima Scheme) চালু করলো কেন্দ্র সরকার। এই যোজনার অধীনে মহিলাদের সন্তানের পড়াশোনা থেকে শুরু করে ব্যাবসা সম্প্রসারণ, চিকিৎসা খরচ থেকে বাড়ি তৈরির জন্য এই প্রকল্পে নাম নথিভুক্তকারীদের আর্থিক সহায়তা করে থাকে সরকার।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য ও সুবিধা:-

মূলত সমাজের পিছিয়ে পড়া অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল মহিলাদের স্বাবলম্বী করে তোলার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ও নিচের সুবিধাগুলো প্রদানের লক্ষ্যে National Backward Class Finance and Development Corporation এর উদ্যোগ ও সহায়তায় এই প্রকল্প চালু করেছে কেন্দ্র।

১) ওবিসি সার্টিফিকেট থাকলেই এই প্রকল্পে আবেদন করা যায়।
২) স্বল্প সুদের হারে মেয়াদি ঋণ।
৩) প্রতিমাসে নয়, তিনমাস পরপর কিস্তি দিতে হয়।
৪) বাড়ি তৈরি, সন্তানের লেখাপড়া ও ব্যাবসা সম্প্রসারণের জন্য আর্থিক সাহায্য পাওয়া যায় সরকারের তরফে।

এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা:-

নিম্নলিখিত মহিলারা Swarnima Scheme এর সুবিধা পাবেন।

১) আবেদনকারীর পরিবারের বাৎসরিক ইনকাম তিন লাখ টাকার কম হতে হবে।
২) আবেদনকারী মহিলার অবশ্যই ওবিসি সার্টিফিকেট থাকতে হবে।
৩) চিকিৎসা খরচের জন্য এই প্রকল্পে সুবিধা নিতে পারবেন মহিলারা।
৪) সন্তানের পড়াশোনার জন্য এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়া যাবে।
৫) বাসস্থান তৈরির জন্য এই স্বর্ণিমা প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন আবেদনকারীরা।
৬) কোনও ব্যাবসা শুরু বা রানিং বিজনেস সম্প্রসারণের জন্য এই স্কিমের সুবিধা গ্রহণ করতে পারেন মহিলারা।

স্বর্ণিমা প্রকল্পে আবেদনের জন্য কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন?

এই প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা নিতে চাইলে নিচের নথিগুলো আবেদনকারীর সঙ্গে রাখতে হবে।

আরও পড়ুনঃ- নতুন বছরে বাড়তি ছুটি। এই প্রচন্ড শীতে বাচ্চাদের স্কুলে যাওয়া নিষেধ। কবে খুলছে স্কুল?

modi government is giving grant to women under swarnima scheme

১) আবেদনকারীর ভোটার কার্ড।
২) আবেদনকারী মহিলার আধার কার্ড।
৩) PAN কার্ড।
৪) আবেদনকারীর ডোমেশিয়াল সার্টিফিকেট বা স্থায়ী বাসিন্দার শংসাপত্র।
৫) ব্যাবসা করার প্রমাণপত্র।
৬) আবেদনকারীর পরিবারের বার্ষিক আয়ের শংসাপত্র।

এধরনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারি স্কলারশিপ সম্বন্ধে বিস্তারিত আপডেট জানতে এখুনি আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপে যুক্ত হন। ধন্যবাদ।

হোয়াটসঅ্যাপ:- Link

গুগল নিউজ:- Link

টেলিগ্রাম:- Link

Like Facebook Page